Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

সিটিজেন চার্টার:

প্রশিক্ষণের নিয়মাবলীঃ

ক) মৌলিক প্রশিক্ষণঃসাধারন আনসার মৌলিক প্রশিক্ষণ জেলা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও আনসার ভিডিপি একাডেমীতে এবং ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ জেলা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়। প্রশিক্ষণের যোগ্যতা নিম্নরূপ-

(১)    বয়স                   ঃ      ১৮~২৫ বছর

(২)   উচ্চতা                 ঃ      ৫'-৪" (পূরুষ) ৫'-০" (মহিলা)

(৩) ওজন                    ঃ      নূনতম ১১০ পাউন্ড

(৪) বুকের মাপ              ঃ      ৩১"~৩৩" (পুরুষ)

(৫) দৃষ্টিশক্তি                 ঃ      ৬/৬

(৬) শিক্ষাগত যোগ্যতা   ঃ     ৮ম শ্রেনী

(৭) জেলার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।

(৮) শারীরিক এবং মানসিক ভাবে সুস্থ্য হতে হবে।

(9) ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ এবং ভোটার আইডি কার্ড থাকতে হবে।

 

প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত আনসার ও ভিডিপির সদস্য/সদস্যা সরকারী চাকুরীর ক্ষেত্রে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর নিয়োগের সময় ১০% কোটার সুবিধা পবেন।

 

খ) কারিগরি/পেশা ভিত্তিক প্রশিক্ষণঃকারিগরি/পেশা ভিত্তিক প্রশিক্ষণের জন্য আনসার অথবা ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ থাকতে হবে। এই প্রশিক্ষণ গুলো জেলা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, রেঞ্জ কার্যালয় কুমিল্লা, রেঞ্জ কার্যালয় সিলেট, টিটিসি গাজীপুর, টিটিসি কলাকোপা এবং আনসার ভিডিপি একাডেমী সফিপুর গাজীপুর অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষাগত যোগ্যতা কোন কোন ক্ষেত্রে ৮ম শ্রেনী কোন কোন ক্ষেত্রে এসএসসি পাশ প্রয়োজন হয়। প্রশিক্ষণ গুলো হল -

 

(১)    ওয়েল্ডিং ১জি টু ৩জি প্রশিক্ষণ

(২)    পাইপ ফিটিং ও প­াম্বিং প্রশিক্ষণ

(৩)    ইলেট্রিক্যাল হাউজ ওয়ারিং প্রশিক্ষণ

(৪)     রেফ্রিজারেশণ এন্ড এসি প্রশিক্ষণ

(৫)     মোবাইল ফোন রিপিয়ার এন্ড সার্ভিসিং প্রশিক্ষণ

(৬)     অটোমোবাইল ম্যাকানিক্স প্রশিক্ষণ

(৭)      অটোমোবাইল ইলেট্রিশিয়ান প্রশিক্ষণ

(৮)     সাটারিং কার্পেন্ট্রি প্রশিক্ষণ

(৯)      রড বাইন্ডিং /স্টিল ফিক্সিং/বিল্ডিং পেইন্টিং প্রশিক্ষণ

(১০)     ইলেট্রিশিয়ান/ফ্রিজ ও এয়ারকন্ডিশনার মেরামত প্রশিক্ষণ

(১১)     সেলাই ও ফ্যাশন ডিজাইন /সোয়োটার নিটিং প্রশিক্ষণ

(১২)     মটর ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ/গার্মেন্টস প্রশিক্ষণ

(১৩)    হস্ত শিল্প  (কাঠ মাটি,উল ও পাট/বাঁশ ও বেত)প্রশিক্ষণ

(১৪)     বেসিক কম্পিউটার প্রশিক্ষণ

 

                      ৫.২     আনসার অঙ্গভূতি/নিয়োগ প্রক্রি্য়াঃযোগ্যতা সম্পন্ন যে কোন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত পিসি/এপিসি/আনসার অঙ্গীভূত হয়ে কাজ করতে পারে।অঙ্গীভূত হওয়ার জন্য সদর দপ্তর কর্তৃক নির্ধারিত তারিখে প্যানেল কমিটির মাধ্যমে প্যানেলভূক্ত হতে হয়। প্যানেলভূক্ত হওয়ার যোগ্যতা নিম্নরূপঃ

       ক) পিসি/এপিসি/আনসার প্রশিক্ষণ থাকতে হবে।

       খ)    বয়স                            :১৮--৫০ বছর       

       গ)    উচ্চতা                : ৫র্-৪র্ (পূরুষ) ৫র্-০র্ (মহিলা)

       ঘ)   ওজন                       :  নূনতম ১১০ পাউন্ড

       ঙ)     বুকের মাপ              : ৩১র্---৩৩র্ (পুরুষ)

       চ)  দৃষ্টিশক্তি                    :  ৬/৬

       ছ)  শিক্ষাগত যোগ্যতা          :  ৮ম শ্রেনী

       জ) জেলার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।

       ঝ) শারিরীক এবং মানষিক ভাবে সুস্থ্য হতে হবে।

 

প্যানেল ভূক্ত হওয়ার সময় প্রশিক্ষণ সনদ, শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ, নাগরিকত্ব সনদ, জাতীয় পরিচয় পত্র, জন্ম নিবন্ধন সনদ, রক্তের গ্রুপ, ডাক্তারী সনদ, পুলিশ ভেরিফিকেশন রিপোট, দুইকপি পাসপোট সাইজ ও দুইকপি ষ্টাম্প সাইজের সত্যায়িত ছবি এবং সকল কাগজ পত্রের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে।

প্যানেল তালিকা সদর দপ্তরে প্রেরন করার পর যাচাই বাছাই করে সদর দপ্তর থেকে অনুমোদিত তালিকা জেলা কার্যালয়ে প্রেরন করা হয় এবং উক্ত তালিকা থেকে বিভিন্ন প্রত্যাশী সংস্থায় আনসার মোতায়েন করা হয়।

অঙ্গীভূত অবস্থায় একজন আনসার নিম্নোক্ত সুবিধা প্রাপ্ত হয়-

ক) বেতন ভাতা হিসাবে একজন আনসার দৈনিক ২৩৪ টাকা এবং একজন

পিসি/এপিসি ২৫০/৩৯ টাকা পায়।

১) বছরে দুইটি উৎসব ভাতা পায়।

২) ভর্তুকি মূল্যে একজন আনসার মাসে ২৮ কেজি চাউল ২৮ কেজি গম এবং ২ লিটার তেল পায়।

৩) সরকারী ভাবে ইউনির্ফম পায়।

৪) দায়িত্ব পালন কালিন সময়ে কোন দূর্ঘটনায় পতিত হলে বিভাগীয় কল্যান তহবিল হতে চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা পায়।

৫) কন্যার বিবাহ ও মেধাবী সন্তানের শিক্ষার জন্য  বিভাগীয় কল্যান তহবিল থেকে আর্থিক সহায়তা পায়।

৬) কৃতিত্বপূর্ণ কাজের জন্য পুরস্কার ও অর্থিক সহায়তা পায়।

 

5.3 প্রত্যাশি সংস্থায় আনসার মোতায়েনঃ  কোন সংস্থা তাদের নিরপত্তার জন্য আনসার       

                     মোতায়েন করতে চইলে নিম্নোক্ত প্রক্রিয়া সম্পূন্ন করতে হয়ঃ

১) জেলা কার্যালয় থেকে নির্ধারিত আবদেন ফরম সংগ্রহ করে প্রয়োজনী তথ্য যথা আনসারদের আবাসন, বিদ্যুৎ, ফ্যান, পানি, রান্নার ব্যবস্থা, চারপায়া, অস্ত্রাগার, ইত্যাদি আছে কি না সে সকল তথ্য পূরন করে আনসারের সংখ্যা উল্লেখ পূর্বক জেলা কার্যালয়ে জমা দিতে হয়। আবেদন ফর্মের সাথে ৫০ টাকার ষ্টাম্পে একটা অঙ্গীকার নামা সংযোজন করতে হয়।

২)সংশ্লিষ্ট উপজেলার আনসার  ও ভিডিপি কর্মকর্তা কর্তৃক পরিদর্শন প্রতিবেদনে আনসারদের প্রয়োজনীয় সুবিধাদি বিদ্যমান থাকলে এবং আনসার মোতায়েনের ব্যাপারে মতামত দিলে মতামতসহ আবেদন আনসার ভিডিপি সদর দপ্তরে প্রেরন করা হয়।

৩)প্রত্যাশি সংস্থা কর্তৃক আনসারদের তিন মাসের বেতন ভাতাদি জেলা কার্যালয়ে চেক/ড্রাফট এর মাধ্যমে অগ্রীম জেলা কার্যালয়ে জমা দিতে হয়। 

৪)সদর দপ্তর থেকে অনুমোদন পাওয়ার পর প্রত্যাশি সংস্থায় আনসার মোতায়ন করা হয়।